রবিবার, ২৯ জানুয়ারী ২০২৩, ০১:৩০ পূর্বাহ্ন

প্রতিনিধি নিয়োগ-
ঢাকা সহ সারাদেশের প্রতিটি জেলা, উপজেলা, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে সংবাদদাতা নিয়োগ করা হবে। আগ্রহী প্রার্থীরা dailyalochitosokal@gmail.com এ সিভি প্রেরণ করার জন্য অনুরোধ করছি।
শিরোনাম:
শুভাশিস মুখার্জীকে নিয়ে মিথ্যা তথ্য প্রচার করায় রীতা চ্যাটার্জীর বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন

শুভাশিস মুখার্জীকে নিয়ে মিথ্যা তথ্য প্রচার করায় রীতা চ্যাটার্জীর বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন

মু,হেলাল আহম্মেদ(রিপন)

পটুয়াখালী জেলা প্রতিনিধিঃ

পটুয়াখালী জেলার সনামধন্য চয়নিকা মেশিনারীজ এর স্বত্ত্বাধিকারী বিশিষ্ট ব্যবসায়ী শুভাশিস মুখার্জীর বিরুদ্ধে সদর পৌরসভার সেন্টার পাড়ার বাসিন্দা মৃত খোকন চ্যাটার্জীর স্ত্রী রীতা চ্যাটার্জী কতৃক মানহানিকর মিথ্যা,বানোয়াট তথ্য দিয়ে গত (১জুন) ২১ ইং তারিখ পটুয়াখালী প্রেসক্লাবে করা সংবাদ সম্মেলনের প্রতিবাদে শুভাশিস মুখার্জীর সংবাদ সম্মেলন। শুভাশিস মুখার্জীর সংবাদ সম্মেলনে করা লিখিত অভিযোগ সূত্রে জানাযায়,আদালতে নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে জোর পূর্বক বসত ঘর নির্মানের প্রতিবাদ করায় এই অসত্য ভিত্তিহীন মনগড়া তথ্য প্রচার। শুভাশিস মুখার্জী বলেন, আমার ভোগ পটুয়াখালী মৌজার জেএল নং ৩৮ এর ১৯২৮ নং খতিয়ানের ৬৮০০/৬৮০১ দাগের ২৪৭৫ সহশ্রাংশ জমির ভোগদখল নিয়ে বিশ্বজিৎ চ্যাটার্জী সাথে দির্ঘদিন ধরে দেওয়ানী মামলা ও বিজ্ঞ আদালতের করা গত(২৭মে) ১৯ ইং তারিখ একটি অন্তবর্তিকালীন অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞা চলমান রয়েছে। আমার ক্রয়কৃত সম্পত্তি জবরদখল থেকে রক্ষা করতে রীতা চ্যাটার্জীর দুই ছেলে বিশ্বজিৎ চ্যাটার্জী ও অর্নব চ্যাটার্জীকে মৌখিক ভাবে নিষেধ করি। রীতা চ্যাটার্জী ও তার দুই পুত্র বিজ্ঞ আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে এবং আমাকে খুন জখমের ভয় দেখায়। আমি শুভাশিস মুখার্জী আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল থেকে আমার ক্রয়কৃত সম্পত্তি জবরদখল ঠেকাতে গত
গত (২৮’মে) ২১ ইং তারিখ পটুয়াখালী সদর থানায় একটি লিখিত অভিযোগ করি। যার ডাইরি নং ১২৮৮। আমার অভিযোগের ভিত্তিতে থানাপুলিশ জবরদখল ঠেকাতে রীতা চ্যাটার্জীসহ তার দুই পুত্র বিশ্বজিৎ চ্যাটার্জী ও অর্নব চ্যাটার্জীকে মৌখিক ভাবে নিষেধ করে। এরই ধারাবাহিকতায় রীতা চ্যাটার্জী বেআইনি ভাবে সম্পত্তি জবরদখলের উদ্দেশ্য আমার বিরুদ্ধে পটুয়াখালী প্রেসক্লাবে মিথ্যা তথ্য ও কুরুচিপূর্ণ শব্দ ব্যবহার করে সংবাদ সম্মেলন করে। আমি এই মিথ্যাচার ও রীতা চ্যাটার্জীর করা সংবাদ সম্মেলনের তিব্র নিন্দা জ্ঞাপন করছি। খোঁজ নিয়ে জানাযায়, রীতা চ্যাটার্জীসহ তার পরিবার অসৎ উদ্দেশ্য ব্যক্তিগত স্বার্থ চরিতার্থে সুপরিকল্পিত ভাবে
মুক্তিযোদ্ধার সাইনবোর্ড ব্যবহার করে। রীতা চ্যাটার্জীর স্বামী স্বর্গীয় খোকন চ্যাটার্জী আদোও সনদ প্রাপ্ত
মুক্তিযোদ্ধা কিনা এনিয়ে রয়েছে নানা গুঞ্জন। এখন পর্যন্ত পটুয়াখালী মুক্তিযোদ্ধার তালিকায় অন্তর্ভুক্ত হয়নি স্বর্গীয় খোকন চ্যাটার্জী। সাধারণ জনগনসহ সুশীল সমাজের দাবি বিজ্ঞ আদালতে নিষেধাজ্ঞা অমান্য কারি জবরদখলদার ও তথাকথিত মুক্তিযোদ্ধার পরিবারের সাইনবোর্ড ব্যবহার কারি রীতা চ্যাটার্জীসহ পরিবারের সকলকে গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনা উচিত।

এব্যপারে অভিযুক্তকারী বিশ্বজিৎ মুখার্জির ব্যবহৃত মুঠোফোনে তার বাবা মুক্তি যোদ্ধা ছিলেন কিনা এ বিষয়টি জানতে একাধিক বার ফোন করলেও ফোনটি রিসিভ হয়নি।.

শেয়ার করুন:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার সম্পূর্ণ বেআইনি
Design & Developed BY SheraWeb.Com