রবিবার, ০৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ১১:৪৩ অপরাহ্ন

প্রতিনিধি নিয়োগ-
ঢাকা সহ সারাদেশের প্রতিটি জেলা, উপজেলা, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে সংবাদদাতা নিয়োগ করা হবে। আগ্রহী প্রার্থীরা dailyalochitosokal@gmail.com এ সিভি প্রেরণ করার জন্য অনুরোধ করছি।
শেখ হাসিনার কাছে বিএনপির অনেক কিছু শেখার আছে-তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী

শেখ হাসিনার কাছে বিএনপির অনেক কিছু শেখার আছে-তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী

তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, আওয়ামী লীগের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি বিএনপি ও বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া চরম অমানবিকতা দেখিয়েছেন। বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমান এবং তার স্ত্রী খালেদা জিয়াসহ যারা এমন অমানবিকতা প্রদর্শন করেছেন, তাদের প্রতি কিন্তু মানবিক আচরণ দেখিয়েছেন আমাদের নেত্রী শেখ হাসিনা। এখানে থেকে বিএনপি শেখার অনেক কিছু রয়েছে।

শুক্রবার (১০ ডিসেম্বর) দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবের মাওলানা মোহাম্মদ আকরাম খাঁ হলে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় এই মস্তব্য করেন তিনি। সার্ক মানবাধিকার ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে এই আলোচনা সভাটি অনুষ্ঠিত হয়।
ড. হাছান মাহমুদ বলেন, বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করার পর ১৯৮১ সালে আমাদের নেত্রী যখন দেশে ফেরত এসেছিলেন, তখন তিনি ৩২ নাম্বার বাড়িতে একটি মিলাদ পড়াতে চেয়েছিলেন। জিয়াউর রহমান ৩২ নম্বর বাড়িতে আমাদের নেত্রীকে ঢুকতে দেয়নি। তাকে রাস্তায় বসে মিলাদ পড়াতে হয়েছিল। তখন মানবাধিকারের কথা মনে ছিল না?

২০০৪ সালে গ্রেনেড হামলা চালিয়ে আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীদের হত্যা করা হলো, পার্লামেন্টে যখন একটি শোক প্রস্তাব পালন করার জন্য উদ্যোগ গ্রহণ করা হলো, বিএনপি নেতারা তখন হাস্যরস করে বলেছিলেন- শেখ হাসিনা নিজে গ্রেনেড নিয়ে গিয়েছিলেন আর খালেদা জিয়া মুচকি মুচকি হাসছিলেন। তখন মানবাধিকার মনে ছিল না যখন বেগম খালেদা জিয়া নিজের জন্মদিনের তারিখটা বদলে দিয়ে ১৫ আগস্ট কেক কাটেন। জন্মদিন যখন আপনারা পালন করেন তখন, মানবাধিকার মনে থাকে না!

মন্ত্রী বলেন, আমরা মানবাধিকার রক্ষায় সভা সেমিনার করবো, কিন্তু নিজের ঘরের মানবাধিকার রক্ষা করবো না। এটা তো হতে পারে না। তাই মানবাধিকার রক্ষা নিজের ঘর থেকে আগে শুরু করতে হবে।

আলোচনা সভায় এ সময় উপস্থিত ছিলেন সংগঠনের সভাপতি বিচারপতি ছিদ্দিকুর রহমান মিয়া, মহাসচিব অধ্যাপক মাওলানা মোহাম্মদ আবেদ আলী, সার্ক মানবাধিকার ফাউন্ডেশন উপদেষ্টা পরিষদ চেয়ারম্যান র. আ. ম. উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী, ঢাকাস্থ ভুটানের রাষ্ট্রদূত রিনচেন কুয়েন্টসিল, জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের সাবেক চেয়ারম্যান কাজী রিয়াজুল হক ও জাতীয় নিরাপত্তা বিশ্লেষক মেজর জেনারেল (অব.) আব্দুর রশীদ।

শেয়ার করুন:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার সম্পূর্ণ বেআইনি
Design & Developed BY SheraWeb.Com